জাহিদ রিপন, পটুয়াখালী প্রতিনিধি- পটুয়াখালীর বাউফলে স্কুলছাত্রের হাতে খু’ন হয়েছে কালিশুরী ডিগ্রী কলেজের উচ্চ মাধ্যমিকের প্রথম বর্ষের ছাত্র রেদোয়ান সিকদার (১৯)। এ সময় গু’রুতর আ’হত হয় রেদোয়ানের অপর দুই ভাই নবম শ্রেণির ছাত্র আব্দুল্লাহ্ সিকদার ও ৬ষ্ট শ্রেণির মাদ্রাসা ছাত্র ফয়সাল সিকদার (১২)।

শনিবার দিনগত রাতের ঘটনায় নি’হত রেদোয়ান উপজে’লার কালীশুরী ইউনিয়নের শিবপুর গ্রামে নুরুল ইসলাম সিকদারের ছেলে। হ’ত্যার ঘটনায় অ’ভিযুক্ত ইমরান কালিশুরী এসএ ইন’ষ্টিটিউশন বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণির ছাত্র এবং একই গ্রামের আলম খানের ছেলে। ঘটনার পর থেকেই ইমরনা প’লাতক রয়েছে। এ ঘটনায় অ’ভিযুক্ত ইমরানের মা সাহিদা বেগমকে গ্রে’প্তার করেছে পু’লিশ।

নি’হত রেদোয়ানের ভাবি রেশমা বেগম (২৫) জানান, (শবে বরাতের দিনে ৯ এপ্রিল) বাড়ির একই উঠানে কম্বল রোদে দেয়াকে কেন্দ্র করে ইমরানের মা সাহিদা বেগমের (৩৫) এর সাথে তার কথা ঝ’গড়া হয়। এক পর্যায়ে ইমরান ও রোদোয়ান এ নিয়ে বাক-বিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে। এর জের ধরে শনিবার দিনগত রাত একটার দিকে ইমরান তাদের নির্মাধীন ঘরে ঢুকে কক্ষের দরজা বাহির থেকে আ’টকে দেয়। দুই ছোট আব্দুল্লাহ্ ও ফয়সালকে নিয়ে যে কক্ষে রেদোয়ান ঘুমায় সে কক্ষে প্রবেশ করে ধারলো দা দিয়ে এলোপাথাড়ি কু’পিয়ে পা’লিয়ে যায়।

একপর্যায়ে ফয়সাল দরজা খুলে দিলে তিনজনকে র’ক্তাক্ত অবস্থায় দেখে ডাক চি’ৎকার দিলে প্রতিবেশিসহ স্থানীয় ওয়ার্ড ইউপি সদস্য বাবুল হোসেন হাওলাদার এগিয়ে আসে। গু’রুতর আ’হত অবস্থায় তিন ভাইকে ওই রাতেই উপজে’লা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রেদোয়ানকে মৃ’ত ঘোষণা করেন। উন্নত চিকিৎসার জন্য আব্দুল্লাহ্ ও ফসালকে বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

উপজে’লা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার সাহা জানান, অতিরিক্ত রক্তক্ষরনের কারণে রেদোয়ানের মৃ’ত্যু হয়েছে।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্ত (ওসি) মোস্তাফিজুর রহমান জানান, অ’ভিযুক্ত ইমরানের মা সাহিদা বেগমকে গ্রে’প্তার করা হয়েছে। ইমরানকে গ্রে’প্তারের চেষ্টা চলছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here