করোনাভাইরাসে বি’ধ্বস্ত ফ্রান্স। পরিস্থিতি সামাল দিতে হিমশিম খাচ্ছে দেশটি। দিন দিন অবস্থা আরও অবনতির দিকে যাচ্ছে।

ক্রমাগত বাড়ছে আ’ক্রান্ত ও মৃ’ত্যুর সংখ্যা। গত ২৪ ঘণ্টায় ইউরোপের এ দেশটিতে মা’রা গেছে ১ হাজার ৪১৭ জন, যা এখন পর্যন্ত একদিনে দেশটিতে মৃ’ত্যুর সর্বোচ্চ সংখ্যা। এ নিয়ে দেশটিতে মৃ’ত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১০ হাজার ৩২৮ জন।

কারোনায় আ’ক্রান্তের সংখ্যায় ফ্রান্স এখন চার নম্বরে। সেখানে আ’ক্রান্তের সংখ্যা ১ লাখ ৯ হাজার ৬৯ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় আ’ক্রান্ত হয়েছে ১১ হাজার ৫৯ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ১৯ হাজার ৩৩৭ জন।

এ ছাড়া ফ্রান্সে বর্তমানে ৭৯ হাজার ৪০৪ জন আ’ক্রান্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ৭২ হাজার ৩৭৩ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। বাকি ৭ হাজার ১৩১ জনের অবস্থা গু’রুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিইউতে রয়েছে।

করোনা সংক্রমণ আ’টকাতে গত ১৭ মার্চ থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন করে মানুষকে বাড়িতে থাকার নির্দেশ দিয়েছিল ফরাসি সরকার। কিন্তু এ লকডাউনেও আ’ক্রান্ত ও মৃ’ত্যুর হার নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না।

ফ্রান্সের স্বাস্থ্যমন্ত্রী আলিভার ভেরান বলেছেন, আমরা করোনাভাইরাস মহামারীর শেষ প্রান্তে পৌঁছাইনি। আমরা এখনও এই মহামারীর চূড়ার কাছাকাছি আছি। যে পথ অনেক দীর্ঘ ও দুঃখজনক।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব তিন মাস ছাড়িয়েছে। এখনও নিয়ন্ত্রণের লক্ষণ খুব একটা দৃশ্যমান নয়। করোনায় বি’পর্যস্ত সারাবিশ্ব। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বজুড়ে ৭ হাজার ৩৭১ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে, যা এ যাবৎ বিশ্বজুড়ে একদিনে সর্বোচ্চ মৃ’ত্যুর রেকর্ড। এ নিয়ে মোট মৃ’ত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৮২ হাজার ২৫ জন।

এ ছাড়া বিশ্বজুড়ে গত ২৪ ঘণ্টায় আ’ক্রান্ত হয়েছে ৮৪ হাজার ৫৫৪ জন। এ নিয়ে মোট আ’ক্রান্ত হয়েছে ১৪ লাখ ৩০ হাজার ৫৯০ জন। এখন পর্যন্ত সুস্থ হয়েছে ৩ লাখ ১ হাজার ৯৪০ জন।

সব মিলিয়ে বর্তমানে ১০ লাখ ৪৬ হাজার ৬২৫ জন আ’ক্রান্ত রয়েছে। তাদের মধ্যে ৯ লাখ ৯৮ হাজার ৭৩৫ জন চিকিৎসাধীন, যাদের অবস্থা স্থিতিশীল। আর ৪৭ হাজার ৮৯০ জনের অবস্থা গু’রুতর, যাদের অধিকাংশই আইসিইউতে রয়েছে।

ভাইরাসটি চীন থেকে ছড়ালেও বর্তমানে সবচেয়ে খারাপ অবস্থা যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটিতে এখন পর্যন্ত ৪ লাখ ৩৩৫ জন আ’ক্রান্ত হয়েছে। আর মৃ’ত্যু হয়েছে ১২ হাজার ৮৪১ জনের। ইতালিতে ১ লাখ ৩৫ হাজার ৫৮৬ জন আ’ক্রান্ত, বিপরীতে মা’রা গেছে ১৭ হাজার ১২৭ জন। এখন পর্যন্ত করোনায় সবচেয়ে বেশি মানুষের মৃ’ত্যু হয়েছে ইতালিতে এবং আ’ক্রান্ত যুক্তরাষ্ট্রে।

এ ছাড়া স্পেনে এখন পর্যন্ত ১ লাখ ৪১ হাজার ৯৪২ জন আ’ক্রান্ত, আর ১৪ হাজার ৪৫ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। জার্মানিতে ১ লাখ ৭ হাজার ৬৬৩ জন আ’ক্রান্ত, ২ হাজার ১৬ জনের মৃ’ত্যু হয়েছে। চীনে আ’ক্রান্ত ৮১ হাজার ৮০২, মা’রা গেছে ৩ হাজার ৩৩৩ জন। ফ্রান্সে আ’ক্রান্ত ১ লাখ ৯ হাজার ৬৯, মা’রা গেছে ১০ হাজার ৩২৮ জন। ইরানে আ’ক্রান্ত ৬২ হাজার ৫৮৯, মা’রা গেছে ৩ হাজার ৮৭২ জন। যুক্তরাজ্যে আ’ক্রান্ত ৫৫ হাজার ২৪২, মা’রা গেছে ৬ হাজার ১৫৯ জন। বেলজিয়ামে আ’ক্রান্ত ২২ হাজার ১৯৪, মৃ’ত্যু হয়েছে ২ হাজার ৩৫ জনের। নেদারল্যান্ডসে আ’ক্রান্ত ১৯ হাজার ৫৮০, মা’রা গেছে ২ হাজার ১০১ জন।

এ ছাড়া ভারতে এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ৫ হাজার ৩১১ জন আ’ক্রান্ত হয়েছে। আর প্রা’ণ গেছে ১৫০ জনের। পাকিস্তানে এ পর্যন্ত ৪ হাজার ৩৫ জন করোনাভাইরাসে আ’ক্রান্ত হয়েছে এবং ৫৭ জন মা’রা গেছে। বাংলাদেশে এ ভাইরাসে এখন পর্যন্ত ১৬৪ জন আ’ক্রান্ত হয়েছে বিপরীতে প্রা’ণ গেছে ১৭ জনের।

এ রোগের কোনো উপসর্গ যেমন জ্বর, গলাব্যথা, শুকনো কাশি, শ্বাসক’ষ্ট, শ্বাসক’ষ্টের সঙ্গে কাশি দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

জনবহুল স্থানে চলাফেরার সময় মাস্ক ব্যবহার করতে হবে। বাড়িঘর পরিষ্কার রাখতে হবে। বাইরে থেকে ঘরে ফিরে এবং খাবার আগে সাবান দিয়ে হাত পরিষ্কার করতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here