ধ’র্ষিতাকে আবারো ধ’র্ষণ করে পু’লিশ! র’ক্ষক যদি ভ’ক্ষক হয় তাহলে জাতি যাবে কার কাছে? সম্প্রতি, রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থা’নার কুতুবখালী এলাকায় ধ’র্ষণের শি’কার এসএসসি পরী’ক্ষার্থীকে আরেকবার ধ’র্ষণ করেছে পু’লিশের এক কন’স্টেবল।

ভু’ক্তভোগী ছাত্রী পু”লিশের সা’হায্য চাইতে গিয়ে কনস্টেবল বাদলের দ্বারাও ধ’র্ষিত হন। এ ঘ’টনায় যাত্রাবাড়ী থা’নায় একটি ধ’র্ষণ মা’মলা হয়েছে। কি’শোরীকে ধ’র্ষণের অভি’যোগে পু’লিশ কনস্টেবলসহ ২ জনকে গ্রে’ফতার করা হয়েছে।

আ’সামিরা হলেন, জয় ঘোষ (২৪) ও বাদল হোসেন (৩৪)। যাত্রাবাড়ী থা’নার অফিসার ই’নচার্জ (ও’সি) কাজী ওয়াজেদ বলেন, কনস্টেবল বাদল পু’লিশের প্র’টেকশন বিভাগে ক’র্মরত।

সে কোনো থা’নায় দায়িত্বরত নয়। বাদল রাজারবাগ পু’লিশ লাইন্সে থাকতো। বিভিন্ন ভিআইপিদের নি’রাপত্তার দায়িত্বে ছিলো সে। গত ৭ এপ্রিল রবিবার পু’লিশ ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আ’দালতকে প্র’তিবেদন দিয়ে বলেছে, আ’সামি জয় ঘোষের স্বভাব-চরিত্র ভা’লো না।

প্র’লোভন দেখিয়ে ওই কি’শোরীর সঙ্গে স’ম্পর্ক করেছিলেন তিনি। অপর আ’সামি বাদল হোসেনও ওই কি’শোরীকে ধ’র্ষণ করেছেন।

ও’সি কাজী ওয়াজেদ বলেন, ত’দন্তে পাওয়া যায় যা’ত্রাবাড়ীর কুতুব’খালী এলাকায় এক বাসায় ওই তরু’ণীকে ফাঁ’দে ফে’লে এনে ধ’র্ষণ করে কন’স্টেবল বাদল।

ইতোমধ্যে ভু’ক্তভোগী তরুণীর মে’ডিকেল পরী’ক্ষা হয়ে গেছে। তার জবা’নব’ন্দিও নেওয়া হয়েছে। যেখানে ধ’র্ষণ করা হয়েছিলো ওই কুতুব’খালীর বাসার বি’ছানার চাদরটি জ’ব্দ করা হয়েছে।

সেটিও প’রীক্ষা-নি’রীক্ষা করে দেখা হচ্ছে। এখন কেবল ডিএনএ প’রীক্ষা করা বা’দ আছে। সেটিও সম্পন্ন করার প্রক্রিয়ায় রয়েছে। তবে পু’লিশ সদস্য বাদল কর্তৃক ধ’র্ষণের প্রাথমিক প্র’মান আমরা পেয়েছি।

ওই পু’লিশ সদস্য ঘট’নার সত্য’তাও স্বী’কার করেছে। তদ’ন্তকারী কর্ম’কর্তাও ঘট’নার স’ত্যতা পেয়েছেন। মা’মলার অন্য আ’সামি জয় ইতোমধ্যেই ধর্ষ’ণের ঘট’নার দা’য় স্বী’কার করে আ’দালতে স্বী’কারোক্তিমূ’লক জবা’নব’ন্দি দিয়েছে।

ভু’ক্তভোগী ওই কি’শোরীও ধ’র্ষণের ঘট’নার বর্ণনা দিয়ে আ’দালতে জ’বানব’ন্দি দিয়েছে।

পু’লিশ ও ভু’ক্তভোগীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এসএসসি পরীক্ষার্থী ওই কি’শোরীর বয়স ১৬ বছর। মা-বাবার সঙ্গে ঢা’কাতেই থাকে সে।

ফেসবুকে জয় ঘোষের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। পরে দুজনের মধ্যে ঘ’নিষ্ঠ সম্পর্ক হয়। তবে সম্পর্কে বি’পত্তি ঘ’টে যখন অ’ন্তরঙ্গ মুহুর্ত ভি’ডিও করে রাখে জয় ঘোষ।

বিস্তারিত তথ্য নিয়ে জানা যায়, এক সপ্তাহ আগে গত ৩১ মার্চ রবিবার রাজধানীর শাহ’বাগ এলাকায় কি’শোরীকে ধ’র্ষণ করেন আ’সামি জয় ঘোষ।

মেয়েটির মোবাইল ফোনে ধ’র্ষণের দৃশ্য ধা’রণও করেন ওই আ’সামি। পরে মেয়েটিকে তার মোবাইল ফোন না দিয়ে গু’লিস্তান এলাকায় নামিয়ে দেয় ওই যুবক।

গু’লিস্তানে নেমে ভু’ক্তভোগী মেয়েটি ভ’য় পে’য়ে পু’লিশ কনস্টেবল বাদল হোসেনের কাছে ঘ’টনা খুলে বলে এবং স’হায়তা চায়। বাদল তখন তাকে মোবাইল ফোন উ’দ্ধারের আশ্বাস দেন এবং বাড়ি পৌঁছে দিতে চান। পরে ওই কি’শোরীকে বাড়ি পৌঁছে দেওয়ার কথা বলে বাদল নিয়ে যান যা’ত্রাবাড়ী এলাকার একটি বাড়িতে।

সেখানে তাকে ধ’র্ষণ করেন বাদল। সূত্র জানায়, ধর্ষ’ণের ঘ’টনায় রাজধানীর শাহ’বাগ থা’না ও যাত্রা’বাড়ী থা’নায় পৃথক ২টি ধ’র্ষণ মা’মলা হয়েছে।

তবে রমনা বি’ভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মারুফ হোসেন সরদার বলেন, আমাদের ইউনিটে সম্প্রতি কোনো পু’লিশ কনস্টেবলের নামে ধ’র্ষণের মা’মলা হয়নি। শাহবাগ থা’নায় ওই রকম কোনো মা’মলা হয়নি। সূত্র-আজকের পত্রিকা

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here