মাইকোপ্লাজমা জেনিটালিয়াম বা সংক্ষেপে এমজি নামক এই রো’গটার প্রায়শই কোন লক্ষণ ধরা পড়েনা।

কিন্তু শ্রোনী প্রদাহজনিত রো’গের জন্ম দিতে পারে যা একজন নারীকে স’ন্তান জন্মদানে অক্ষম করে দিতে পারে।

মহিলাদের শ্রোণী অঞ্চলে যে অঙ্গগুলো থাকে তা হল- অন্ত্র, মুত্রাশয়, জরায়ু ও ডিম্বাশয়।

সঠিক চিকিৎসা না করালে এমজি জীবানু শরীরে থেকে যেতে পারে যা শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠতে পারে।

আর সে কারণেই ব্রিটিশি এসোসিয়েশন অফ সে’ক্সুয়াল হেল্থ অ্যান্ড এইচআইভি এ বি’ষয়ে নতুন পরামর্শ দিয়েছে।

এমজি আসলে কি?

এটি একটি ব্যাকটেরিয়া যা পুরুষের মুত্রনালীতে প্রদাহ তৈরির কারণ হতে পারে যা পু’রুষাঙ্গে আ’ক্রান্ত হওয়ার ফলে মুত্রত্যাগের সময় ব্যথা অনুভূত হবে।

আর নারীদের ক্ষেত্রে ডিম্বাশয়সহ প্রজনন অঙ্গগুলোতে প্রদাহ হতে পারে যার মধ্যে প্রচণ্ড ব্যথা এবং জ্বর হতে পারে। কিছু ক্ষেত্রে র’ক্তক্ষরণেরও সম্ভাবনা আছে।

ইতোমধ্যেই এই ব্যাকটেরিয়ায় আ’ক্রান্ত কারও সাথে যৌ’ন সম্পর্ক হলে এ রো’গ আরেকজনের মধ্যেও ছড়াতে পারে।

আর সে কারণেই যৌ’ন সম্পর্কের ক্ষেত্রে কনডমের ব্যবহার রো’গটি থেকে মুক্ত থাকার সহজ উপায় বলে বলা হচ্ছে।

আরও পড়ুন ‘সুপার গনোরিয়ায়’ আ’ক্রান্ত ব্যক্তি অবশেষে সুস্থ

যুক্তরাজ্যে ১৯৮০ সালে প্রথম রো’গটি সনাক্ত হয়েছিলো।

এখন এ রো’গটিকে উ’দ্বেগজনক বলে একটি গাইডলাইন তৈরি করেছে ব্রিটিশি এসোসিয়েশন অফ সে’ক্সুয়াল হেল্থ অ্যান্ড এইচআইভি।

অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে এ রো’গের চিকিৎসা হতে পারে কিন্তু সংক্রমক ব্যাকটেরিয়া এখন ক্রমশ অ্যান্টিবায়োটিক প্রতিরোধী হয়ে উঠছে।

‘আমি এমজি পরীক্ষা করিয়েছি’

বিবিসির কাছে এমজিতে সংক্রমিত হওয়ার নিজের অভিজ্ঞতার বর্ণনা দিয়েছেন জন (ছদ্মনাম)।

“নতুন পার্টনারের সাথে সম্পর্ক তৈরির পর আমার এমজি ধরা পড়ে। সম্পর্কের শুরুতে দুজনেই কিছু পরীক্ষা করিয়েছিলাম এবং তখন কোন সমস্যা ধরা পড়েনি। তবে লক্ষণ না থাকায় এমজির টেস্ট করায়নি ক্লিনিক”।

এরপর নতুন সঙ্গীর সাথে সম্পর্ক শুরুর একমাসের মাথায় সমস্যা বোধ করতে শুরু করেন জন।

“মুত্রত্যাগের সময় অনেক ব্যাথা হচ্ছিলো। কিন্তু সমস্যাটি কোনোভাবেই বুঝতে পারছিলামনা। কয়েক সপ্তার মধ্যেই পরীক্ষা করে এমজির অস্তিত্ব পাই। তবে আমার সঙ্গীর তখনো ধরা পড়েনি। পরে আবার পরীক্ষার পর তার শরীরেও এমজির অস্তিত্ব পাওয়া যায়।”

এরপর দু সপ্তাহ অ্যান্টিবায়োটিক সেবন করেন ও অন্তত পাঁচ সপ্তাহ যৌ’ন সম্পর্ক থেকে বিরত থাকেন যাতে করে রো’গটি থেকে পুরোপুরি মুক্ত হতে পারেন জন।

কিন্তু পরে আবারও এটি ফিরে এসেছে বলে মনে হচ্ছে এবং সেজন্য বেশকিছু পরীক্ষা করা হচ্ছে আবার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here