জুমবাংলা ডেস্ক : ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আ’ঘাতে সাতক্ষীরা শহরের কামাননগর এলাকায় গাছ চা’পা পড়ে একজনের মৃ’ত্যু হয়েছে।

এছাড়া সুন্দরবনসংলগ্ন সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজে’লার পদ্মাপুকুর, গবুরা ও আশাশুনির প্রতাপনগর ইউনিয়নের কয়েকটি এলাকায় কপোতাক্ষ, খোলপেটুয়া নদীর বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে।

সবচেয়ে বেশি ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়েছে পদ্মপুকুর ইউনিয়নের চাউলখোলা এলাকায়। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ২০০ ফুটের মত এলাকা ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি প্রবেশ করছে।

কামালকাটি ও চন্ডিপুর এলাকায়ও একই অবস্থা।

গাবুরা ইউনিয়নের জে’লেখানি ও নাপিতখালী এলাকা, আশাশুনির প্রতাপনগর ইউনিয়নের সুভদ্রকাটি, কুড়িকাউনিয়া, চাকলা, হিজলা, দিঘলাররাইট, কোলা ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি ঢুকছে বলে নিশ্চিত করেছেন আশাশুনি উপজে’লা নির্বাহী অফিসার মীর আলিফ রেজা।

এদিকে সাতক্ষীরা শহর, পাটকেল ঘাটা, তালা ও কলারোয়ায় গাছ গাছালি ভেঙ্গে ও কাঁচা ঘরবাড়ী ও টিনের চাল উড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষ’তির খবর পাওয়া গেছে।

সাতক্ষীরা আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জুলফিকার আলী জানান, ঘন্টায় ১০০-১২০ কিলোমিটার গতিবেগে বিকাল ৪টার দিকে সুন্দরবন উপকূলে সুপার সাইক্লোন আম্পান আছড়ে পড়ে।

পরবর্তিতে ধীরে ধীরে এর গতিবেগ বৃদ্বি পেয়ে সন্ধ্যা ৭টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ১৪৮ কিলোমিটার গতিবেগে পূর্বদিক থেকে পশ্চিম দিকে ঝড়হাওয়াটি প্রবাহিত হতে থাকে।

এদিকে শ্যামনগর উপজে’লা নির্বাহী কর্মকর্তা আ,ন,ম আবুজর গিফার জানিয়েছেন, আম্পানের কারনে নদীর পানি ৩ থেকে ৪ ফুট বৃ’দ্ধি পেয়ে নদীর প্রবল জোয়ারে মুন্সিগঞ্জ ইউনিয়নের দাঁতনেখালি, দূর্গাবাটি,পদ্মপুকুর ও গাবুরার বেশ কয়েকটি পয়েন্টে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে লোকালয়ে পানি ঢুকছে।

কাঁচা ও টিনের ঘরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষ’তি হয়েছে। গাছ-গাছালি উপড়ে রাস্তা-ঘাট ও বাড়ী ঘরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষ’তি হয়েছে। বাড়ী ঘর ছেড়ে উপজে’লার বিভিন্ন সাইক্লোন শেল্টার ও আশ্রয় কেন্দ্রে ১লক্ষ ৫৩ হাজার ৮জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

স’রকারের পক্ষ থেকে ৫০ মেট্রিক টন চাউল ও ৪ লক্ষ নগদ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এদিকে জে’লা প্রশাসনের দু’র্যোগ ব্যবস্থাপনা কন্ট্রোল রুম থেকে জানানো হয়েছে, ১৪৭টি সাইক্লোন শেল্টার ও ১ হাজার ৬৯৮ টি স্কুল কলেজে ৩ লাখ ৭০ হাজার ১৫০ জন মানুষ আশ্রয় নিয়েছে।

জে’লায় ১২ হাজার সেচ্ছাসেবকের পাশাপাশি ১০৩ জনের মেডিকেল টিম স্বাস্থ্য সেবায় নিয়োজিত রয়েছে। স’রকারের পক্ষ থেকে ২৫০ মেট্রিক টন চাউল ও নগদ ১২ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এর পাশাপাশি উপকূল এলাকায় উ’দ্ধার তৎপরতা ও দূর্যোগ মোকাবেলায় সে’নাবা’হিনী, বিজিবি, পুলিশ, নোবাহিনী ও কোস্টগার্ড নিয়োজিত রয়েছে।

এদিকে মরিচপাচসহ বিভিন্ন নদ-নদীর পানি ২ থেকে ৩ ফুট বৃ’দ্ধি পেয়েছে। হালকা দমকা হওয়ার সাথে থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে।

শ্যামনগর উপজে’লার পদ্মপুকুর ও গাবুরা, মুন্সিগঞ্জ ও আশাশুনি উপজে’লার গয়ারঘাট, হাজরাকাটি, কুড়িকাউনিয়া, মনিপুরি ও বিছট এলাকার বেড়িবাঁধে ভ’য়াবহ ফাটল দেখা দিয়েছে ইতিমধ্যে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here